পাঁচমিশেলি বুথফেরত সমীক্ষা তালগোল পাকিয়ে দিচ্ছে শেয়ার বাজারকে

0
Assembly Elections
জয়ন্ত মণ্ডল

মাঝে দু’দিনের বিরতির পর পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফলের আগের দু’দিন শেয়ার বাজারে যে তালগোল পাকানো কার্যকলাপ দেখা যাবে, সে বিষয়ে সন্দেহের অবকাশ নেই। তার কারণ অবশ্যই, পাঁচরাজ্যের ফল নিয়ে পাঁচমিশেলি বুথফেরত সমীক্ষা।

গত শুক্রবার শেষ কেনাবেচায় স্পষ্ট ভাবেই দেখা গিয়েছে নিফটি৫০ নিজের গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্টের দিকে পরিচালিত হয়েছিল। শুরু দিনের বেশির সময়ই সেই সাপোর্ট মেনে চলে বেলা শেষে স্বাস্থ্যকর পয়েন্ট পুনরুদ্ধারেও সফল হয়েছিল নিফটি। গত বৃহস্পতিবার নিফটি বন্ধ হয়েছিল ১০.৬০১.১৫ পয়ন্টে। আর শুক্রবার বাজার খোলার সময় তা ছিল ১০,৬৪৪.৮০ পয়েন্টে। অর্থাৎ, বেশ খানিকটা বেড়ে খোলায় যে ইঙ্গিত মিলেছিল, দিনের শেষে তার একটা স্মার্ট চেহারার প্রতিফলন কিন্তু দেখা গিয়েছে। এবং আর বেশি নজরে পড়ার কথা, সে দিন নিফটির খাদ। ১০,৫৯৯.৩৫ (যা কি না আগের দিনের থেকে মাত্র ২ পয়েন্টের হেরফের) পয়েন্টের লো বেশ আশাব্যঞ্জক। কারণ, নীচের দিকে কোনো সাপোর্টেই আঘাত লাগেনি সে দিন। তবে সোমবার কিন্তু বেশ তালগোল পাকানো ছবি স্পষ্ট হতেই পারে।

১ শতাংশ না হলেও .৮৭ শতাংশ (৯২.৫৫ পয়েন্ট) বেড়ে বন্ধ হয়েছিল গত শুক্রবারের নিফটি। দিনের শুরু থেকে ৫০ দিনের ডিএমএর দিকে তাকিয়ে নির্দিষ্ট সীমানায় আটকা পড়ে গিয়েছে মনে হলেও বেলা শেষে নিফটির এই .৮৭ শতাংশ বৃদ্ধি বেশ তাক লাগানো তো বটেই।

সোমবারের শেয়ার বাজার, আপডেট পড়ুন

এ বার আসা যাক সোমবারের কথায়। কী হতে পারে, তা বলার জন্য যে সমস্ত ফ্য়াক্টরের আনাগোনা চলছে, তার মধ্যে সব থেকে আগেই চলে আসছে পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা ভোটের ফলাফল। যা আগামী ১১ ডিসেম্বর, মঙ্গলবার গণনা হতে চলেছে। কিন্তু ভোট মিটতেই বিভিন্ন সমীক্ষক সংস্থা বুথফেরত মানুষের রায় প্রকাশ করে দিয়েছে।

সোমবারের শেয়ার বাজারে যে সমস্ত রকমের অস্থিরতা সারাটা দিন জুড়েই বিরাজ করবে, তা নিয়ে বিনিয়োগকারীরা নি‌ঃসন্দেহ থাকতে পারেন। এক-একটা সমীক্ষা এক-এক রকমের পর্যবেক্ষণের ফল তুলে ধরেছে। একটা-দুটো রাজ্য ছাড়া বাকিগুলিতে নিশ্চয়তা মেলেনি। তার উপর যেগুলিতে ফল স্পষ্ট বলে দাবি করা হচ্ছে, সেখানে কেন্দ্রীয় সরকারি দলের প্রাধান্য- সবে মিলে বহুমুখি অস্থিরতার প্রবল চাপ থাকতে পারে আজকের শেয়ার বাজারে। অন্য দিকে এই পাঁচ রাজ্যের মধ্যে রাজস্থান বাদ দিলে বহুচর্চিত মধ্যপ্রদেশ নিয়ে সব থেকে বেশি ধোঁয়াশা তৈরি করেছে সমীক্ষাগুলি। এক দিকে একাধিক সমীক্ষায় যেমন কোনো দিশা মেলেনি, তেমনই আবার বৃহৎ সমীক্ষকরাও ফলাফল নিয়ে আড়াআড়ি ভাগ হয়ে গিয়েছেন। স্বাভাবিক ভাবেই শেষমেশ কী হবে, সে প্রশ্নের উত্তরই তাড়া করে বেড়াচ্ছে ভোটারদের মতো দালাল স্ট্রিটকেও।

আরও পড়ুন: আপনার বয়স কি ২৫-৩০? তা হলে বেছে নিতে পারেন এই সরকারি সঞ্চয় প্রকল্প

এই অস্থিরতা থেকেই আসতে পারে সিস্টেম শর্টসের। শুক্রবারে কিন্তু এ ধরনের সংক্ষিপ্ত পর্যায়ের পাশাপাশি লম্বা সংযোজনও নজরে পড়েছিল। সোমবার সে সবের বালাই নাও থাকতে পারে। স্বাভাবিক ভাবেই সতর্কতাই আজকের জন্য শ্রেষ্ঠ অবলম্বন হতে পারে বিনিয়োগকারীদের। বিশেষ করে ২০০ দিনের ডেলি মুভিং অ্য়াভারেজ (ডিএমএ)-এর উপরে অতিক্রম না করা পর্যন্ত সেই সতর্কতা জারি রাখলে আখেরে লাভ বিনিয়োগকারীরই।

তাই বলে কি নতুন স্টক কেনা যাবে না? অবশ্যই- তবে সেটা হওয়া চাই ‘আত্মরক্ষামূলক’!

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন