germany

দক্ষিণ কোরিয়া-২     জার্মানি-০

সুইডেন-৩     মেক্সিকো-০

ওয়েবডেস্ক: কত ইতিহাসের কথা বলব। প্রথমটা তো শিরোনামেই রয়েছে। ১৯৩৮ সালে শেষবার গ্রুপপর্ব থেকে বিদায় নিয়েছিল জার্মানি। তারপর পশ্চিম জার্মানির দীর্ঘ ইতিহাস। ১৯৭৮ সালে তাঁরা সেকন্ড গ্রুপ স্টেজ থেকে বিদায় নিলেও, সেটা প্রথম রাউন্ড ছিল না। এমনকি পূর্ব জার্মানি, ১৯৫০ থেকে ১৯৯০ সালের মধ্যে তাঁরা বিশ্বকাপের মূলপর্বে খেলেছিল একবারই। ১৯৭৪ সালে। সেবার তাঁরাও দ্বিতীয় রাউন্ডে গিয়েছিল।

১৯৯০ সালের পর এতদিন জার্মানরা কখনও গ্রুপ পর্বে প্রথম ছাড়া দ্বিতীয় হয়নি। আর এবার তো বিদায় নিতে হল।

জার্মানরা কখনও গ্রুপ পর্বে দুটি ম্যাচ হারেনি, এবার সেটাই হল।

২০০২ সালে রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিয়েছিল বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। সেবার বিদায় নিয়েছিল ফ্রান্স। ২০১০ সালে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয় ২০০৬-এর বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ইতালি। ২০১৪ সালে গ্রুপ থেকে বিদায় নেয় ২০১০ সালের চ্যাম্পিয়ন স্পেন। এবার বিদায় নিল গতবারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানি।

সত্যি বলতে কি, এদিনের ম্যাচে জার্মানরা দুর্বল কোরিয়ার বিরুদ্ধে টানা আক্রমণ চালালেও তাতে কোনো ভেদশক্তি ছিল না। কখনও মনে হয়নি্ তাঁরা জিতবে। বরং চোখে পড়েছে কোরিয়ানদের অদম্য ডিফেন্স। ম্যাচের শেষবেলায় কিমের গোলটা জার্মানির কফিনে শেষ পেরকটা পুঁতে দেয়। সংযুক্ত সময়ের শেষপর্বে সনের গোলটার কথা না বলাই ভাল। কারণ তখন জার্মান গোলরক্ষক নয়ারও কোরিয়ার পেনাল্টি বক্সের কাছে ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন।

জার্মান ফুটবল সিস্টেম দুরন্ত, ফুটবল যে আসলে টিমগেম তা জার্মানদের খেলা দেখেই বোঝা যায়- এসব কথা যে সব ফুটবলবোদ্ধা একটানা বলে চলেন, তাঁদের এবার মেনে নেওয়া উচিৎ দক্ষ ফুটবলার না থাকলে কোনো সিস্টেমই কাজ দেয় না। তবু আশা করা যাক, আগামী বিশ্বকাপে আবার ধ্বংসস্তূপ থেকে উঠে এসে চ্যাম্পিয়নশিপের দাবিদার হয়েই শুরু করবে জার্মানরা।

এদিন গ্রুপ এফের অন্য ম্যাচে মেক্সিকোকে ৩-০ গোলে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হল সুইডেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তাঁরা খেলবে ব্রাজিলের গ্রুপের রানার্সের বিরুদ্ধে। অন্যদিকে সোমবার সন্ধ্যায় ব্রাজিলের গ্রুপের চ্যাম্পিয়নের বিরুদ্ধে খেলবে মেক্সিকো।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রথম গোল

দক্ষিণ কোরিয়ার দ্বিতীয় গোল

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here