mwcfinal

আর্জেন্তিনা – ১                         আইসল্যান্ড – ১

ওয়েবডেস্ক: ফুটবলে একটা কথা আছে পেনাল্টি মিস করলে কপালে দুঃখ আছে। ম্যাচ শেষে যা ভালোই বুঝবেন আর্জেন্তাইন অধিনায়ক এবং বিশ্বের ও অন্যতম সেরা খেলোয়াড় লিও মেসি। সারা ম্যাচে আধিপত্য নিয়ে খেললেও দিনটা আজকে তাঁর ছিল না। আর তিনি যখন ফ্লপ তখন আর্জেন্তিনাও আটকে যাবে এটাই স্বাভাবিক। তবে বাহবা দিতেই হবে আইসল্যান্ডকে। আর্জেন্তিনাকে আটকে দিয়ে প্রথম বার বিশ্বকাপের মঞ্চে তারা বুঝিয়ে দিল, ভবিষ্যতে অন্যতম শক্তিশালী দল হতে চলেছে তারা।

শনিবার শুরুতে মাঝমাঠ দখলের চেষ্টা করে দু’দল। তবে ধারে ভারে যে নীল-সাদা ব্রিগেড অনেক এগিয়ে তা ধীরে ধীরে বোঝাতে থাকে তারা। মেসির ফ্রি-কিক থেকে জালে বল ঢোকাতে ব্যর্থ হন টাগলিয়াফিকো। প্রতি-আক্রমণে আইসল্যান্ডের হয়ে সুযোগ হাতছাড়া করেন বিয়রসেনও। ক্রমাগত চাপের পরিমাণ বেশি থাকায় কুড়ি মিনিটের মধ্যে গোল আর্জেন্তিনার। অনবদ্য গোল দলের অন্যতম সেরা স্ট্রাইকার অ্যাগুয়েরোর। বিশ্বকাপের ইতিহাসে নিজের প্রথম গোল করলেন তিনি। অবশ্য বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি আইসল্যান্ডক। সাধ্যমতো আক্রমণে ফিনবোগাসেনের গোলে সমতা ফেরায় তাঁরা। প্রথমার্ধেে শেষ দিকে আক্রমণ চালালেও ব্যবধান বাড়াতে পারেনি আর্জেন্তিনা। তবে বিরতিতে লিড নিতেই পারত আইসল্যান্ড। কিন্তু সিগুরডসেনের শট বাইরে।

দ্বিতীয়ার্ধেও পজিশনাল আক্রমণ দু’দলের। গোলের জন্য প্রথম থেকেই ঝাপান ডি’মারিয়া, ওটামেন্ডিরা। কুড়ি মিনিটের মধ্যেই এগিয়ে যাওয়ার সহজ সুযোগ পেয়েছিল আর্জেন্তিনা। তবে পেনাল্টি থেকে অবিশ্বাস্য মিস করেন মেসি। ফলে সেখানেই ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণ হয়ে যায়। প্রতি-আক্রমণে বেশ কয়েক বার বিপদ বাড়িয়ে ছিল আইসল্যান্ডও। কিন্তু অভিজ্ঞতার অভাবে তা কার্যকর হয়নি। শেষ দিকে হিগুয়েন, পাবনদের নামিয়ে জয়সূচক গোলের অপেক্ষায় ছিলেন আর্জেন্তাইন কোচ সাম্পাওলি কিন্তু তা কার্যকর হয়নি।

ফলে বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই হোঁচট খেল লা আলবিসিলেস্তেরা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here