bra2final

ব্রাজিল – ২                           কোস্তারিকা – ০ 

ওয়েবডেস্ক: বিশ্বকাপ দেখা সার্থক, অন্তত এই ম্যাচের পর কিছুটা বলা যেতেই পারে। পেলে, গ্যারিঞ্চা, রোমারিও, রোনাল্ডোদের সময় ব্রাজিলকে আমরা যে ভাবে জানতাম এবং শুনেছি অনেক দিন পর অন্তত আজকে ফের দেখা গেল সেই ব্রাজিলকে। ম্যাচের শেষ পর্যন্ত লড়ে যাওয়া। বিপক্ষ দলের থেকে ক্রমাগত ফাউল, পেশিশক্তিকে হার মানিয়ে এই জয় সত্যি অবিশ্বাস্য। এ দিনের ম্যাচে সবই করেছিল ব্রাজিল, শুধু গোল পাচ্ছিল না। যা শেষ পর্যন্ত না পেলে সেলেকাওদের প্রতি একটা অন্যায়ই হত। বিশ্বকাপ জিততে গেলে যে চাপ নিয়ে ম্যাচ বের করতেই হবে তা ম্যাচের শেষ পর্যন্ত লড়ে বুঝিয়ে দিলেন কুটিনহো, নেইমাররা।

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী গতকাল বিশ্রী ভাবে ম্যাচ হেরেছে। তাই প্রথম থেকেই দলগত সঙ্গতিকে কাজে লাগিয়ে আক্রমণ নেইমারদের। প্রথম ম্যাচের মতো দ্বিতীয় ম্যাচেও নিজের জাত চেনালেন কুটিনহো। শুরুতেই তাঁর শট একটুর জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। প্রথমার্ধে দলে তেমন গতি না থাকলেও, গোলের জন্য প্রথম থেকেই ছোটো ছোটো পাসে খেলা শুরু করে ব্রাজিল। মাঝে অবশ্য কিছুটা খেলায় ফিরে আসে কোস্তারিকা। ফাঁকা সুযোগ পেয়েছিলেন বেনেগাস কিন্তু বাইরে মারেন তিনি। তবে ওইটুকুই যা। শেষ পনেরো মিনিট শুধুই ব্রাজিল। গোল পেয়েও গিয়েছিল তারা। কিন্তু জেসুসের অফসাইডের জন্য বাতিল হয়ে যায়। ক্রমাগত চাপ দিতে থাকেন সেলেকাওরা। দলকে কাঙ্খিত গোল এনে দিতেই পারতেন ম্যাচের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় মার্সেলো। কিন্তু দু’বারই সহজ সুযোগ হাতছাড়া করেন তিনি। ফলে বিরতিতে গোলশূন্য ভাবেই শেষ করেন তিতের ছেলেরা।

দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য অন্য ব্রাজিল। প্রথম থেকেই গতি। যার জন্য ডিফেন্ড করা ছাড়া আর কোনো উপায় ছিল না কোস্তারিকার। তাদের ম্যাচে শেষ পর্যন্ত লড়ে যাওয়ার একটাই কারণ দলের তারকা খেলোয়াড় গোলকিপার নাবাস। সারা ম্যাচ জুড়ে একাধিক পতন রোধ করলেন তিনি। না হলে কখন হারিয়ে যায় গত বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালিস্টরা। প্রথম ম্যাচের দ্বিতীয় ম্যাচেও একাধিক বার ফাউল করা হল নেইমারকে। ক্রমাগত ফাউলের জেরে অবশেষে পেনাল্টি পায় ব্রাজিল। নেইমারকে ফাউলের জেরে। রেফারি প্রথমে পেনাল্টি দিলেও, ভিআরএস পদ্ধতি ব্যবহার করে তা খারিজ করে দেন। তবে ব্রাজিল বলতে আমরা যা বুঝি বহু দিন বাদে সেই ঝলক ফিরে পাওয়া গেল। ছয় মিনিট সংযুক্ত সময়ের প্রথম মিনিটে কুটিনহোর গোলে অবশেষে লিড নেয় ব্রাজিল। বল অনুসরণ করে টুর্নামেন্টে দ্বিতীয় গোল তাঁর। এর পর আর ফিরে তাকাতে হয়নি পাঁচ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের। শেষ বাঁশি বাজার আগে দলকে দ্বিতীয় গোল এনে দিয়ে বিশ্বকাপে নিজের খাতা খুললেন সেই নেইমার।

ফলে দ্বিতীয় ম্যাচ জিতে আপাতত গ্রুপ শীর্ষে ব্রাজিল। দুই ম্যাচে চার পয়েন্ট। অন্য দিকে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্থানে রয়েছে যথাক্রমে সার্বিয়া এবং সুইজারল্যান্ড। যাদের পয়েন্ট তিন এবং এক। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে তারা একে-অপরের মুখোমুখি হচ্ছে শুক্রবার রাতে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here