peru-wc

ওয়েবডেস্ক: আসন্ন বিশ্বকাপে গ্রুপ সি-র অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দল দক্ষিণ আমেরিকার পেরু। ৩৬ বছর পর ফের তারা বিশ্বকাপে ফিরতে চলেছে।। এই নিয়ে পঞ্চমবার বিশ্ব মঞ্চে তারা। ১৯৭০ এবং ১৯৭৮ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছে ছিল তারা। এ ছাড়াও দু’বার কোপা আমেরিকা জয়ের খেতাবও রয়েছে তাদের ঝুলিতে।

তবে কোচ রিকারডো গারেকার প্রশিক্ষণে পেরুর রেকর্ড খুব একটা মন্দ নয়। ২০১৫ এবং ২০১৬ সালে কোপা আমেরিকার কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছেছিল তাঁরা। এবার তাঁরা টানা দশ ম্যাচ অপরাজিত থেকে বিশ্বকাপের মূল পর্বে পৌঁছেছে। টানা দশ ম্যাচ অপরাজিত থাকার কৃতিত্ব পেরুর ফুটবল ইতিহাসে এই নিয়ে দ্বিতীয়বার।

gareca-wc

দলের বেশিরভাগ খেলোয়াড়ই দক্ষিণ এবং উত্তর আমেরিকার দেশগুলিতে পেশাদারি ফুটবল খেলেন। তবে যাদের ওপর নজর থাকবে তারা হলেন গোলকিপার পেদ্র গালেসি। ডিফেন্সের সব থেকে বড়ো দায়িত্ব অধিনায়ক অ্যালবারটো রডরিগেজের ওপর। তাঁকে যোগ্য সঙ্গ দেওয়ার জন্য থাকবেন ক্রিস্টিয়ান র‍্যামোস এবং লুইস আডভিঞ্চুলা। মাঝমাঠে আক্রমণ তৈরির দায়িত্ব জোসিমার জতুন এবং ব্রাজিলের সাওপাওলো দলে খেলা ক্রিস্টিয়ান কুয়েভা। তবে পেরুর এই দলের সবচেয়ে বড়ো তারকা মিডফিল্ডার এডিসন ফ্লোরেস। যোগ্যতাঅর্জন পর্বে তিনি দলের হয়ে পাঁচটি গোল করেছেন।

তবে পেরুর জন্য একটাই দুঃখের খবর। যোগ্যতা-অর্জন পর্বে ডোপ টেস্ট সফল না হওয়ার কারণে বাদ পড়েছেন দেশের সর্বোচ্চ গোলদাতা গুয়েরেরো। তাঁর জায়গায় গোল করার দায়িত্ব থাকবে জেফারসন ফারফান এবং রাউল রুইডিয়াজের ওপর।

বিশ্বকাপে প্রথম ম্যাচে তারা মুখোমুখি হবে ডেনমার্কের।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here