ওয়েবডেস্ক: আসন্ন বিশ্বকাপে অন্যতম সেরা দল ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন পর্তুগাল। গ্রুপ বি-তে রয়েছে তারা। ১৯৬৬ সালে প্রথমবার বিশ্বকাপের মঞ্চে আবির্ভাব হয় তাদের। প্রথমবারেই বিশ্ব ফুটবলে নিজেদের ছাপ রেখেছিল পর্তুগাল। সৌজন্যে ইউসেবিও। যাকে সর্বকালের সেরা পর্তুগিজ খেলোয়াড় বলা হয়। যদিও রোনাল্ডো তাঁর অনেক রেকর্ডই ভেঙে দিয়েছেন। তাঁর হাত ধরেই বিশ্বকাপে তৃতীয় হয় পর্তুগাল। আসন্ন বিশ্বকাপ মিলিয়ে মোট সাত বার বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে চলেছে পর্তুগাল।

২০০৬ বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে গিয়েছিল তারা। তবে তাঁদের সবচেয়ে বড়ো সাফল্য অবশ্যই ২০১৬ সালের ইউরো জয়।

আসন্ন বিশ্বকাপে তাদের ওপর নজর রাখার অন্যতম কারণ, বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড় ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। এই মুহূর্তে নিজের দল রেয়াল মাদ্রিদের হয়ে স্বপ্নের ফর্মে রয়েছেন তিনি। ইতিমধ্যেই চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালে নিয়ে গিয়েছেন রেয়ালকে। জাতীয় দলের কোচ ফার্নান্ডো স্যান্টসের সঙ্গে দারুন সম্পর্ক অধিনায়ক রোনাল্ডোর। তাই বলাই যায় আসন্ন বিশ্বকাপেও ট্রফি জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে উঠবেন এই জুটি।

portugal-teamfinal

রোনাল্ডো ছাড়াও যাদের অপর নজর থাকবে তাঁরা হলেন গোলকিপার লুই প্যাট্রিসিও, বর্ষীয়ান ডিফেন্ডার ব্রুনো অ্যালভেস এবং পেপে। অন্যদিকে ইপিএল চ্যাম্পিয়ন ম্যাঞ্চেস্টার সিটির অন্যতম সেরা খেলোয়াড় বার্নার্ডো সিলভা এবং জোয়া মুতিনহোর ওপর দায়িত্ব মাঝমাঠ থেকে আক্রমণ তৈরি করা। এ ছাড়াও, আক্রমণে মূল চাবিকাঠি রোনাল্ডোর সঙ্গে নজর থাকবে আন্দ্রে সিলভা, রিকারডো কুরেসমা এবং অবশ্যই ইউরো ফাইনালে একমাত্র গোল করা এডেরের ওপর। রোনাল্ডো-সিলভা জুটি এবারের প্রি ওয়ার্ল্ড কাপে ২৪টি গোলে করেছে। সমস্যা একটাই, পর্তুগালের ডিফেন্স লাইন অর্থাৎ পেপে-আলভেসদের বয়স যথেষ্ট বেশি।

এছাড়া রয়েছেন আরও এক প্রতিশ্রুতিমান ফুটবলার। বার্নার্ডো সিলভা। রোনাল্ডোর পরে উঠে আসা সে দেশের সবচেয়ে প্রতিভাবান ফুটবলার তাঁকেই মনে করা হচ্ছে। কিন্তু অনেকেরই ধারণা আক্রমণ ভাগে ঠিকমতো তাঁকে ব্যবহার করতে পারছেন না কোচ স্যান্টোস। এই বিশ্বকাপের নতুন তারকা হতেই পারেন তিনি।

বার্নার্ডো সিলভা

বিশ্বকাপের দ্বিতীয় দিনে তারা মুখোমুখি হবে গ্রুপের ওপর হেভিওয়েট স্পেনের বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপ ২০১৮: স্পেন

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন