Homeভ্রমণবাংলায় ভ্রমণ: চলুন ঘুরে আসি গড় জঙ্গল

বাংলায় ভ্রমণ: চলুন ঘুরে আসি গড় জঙ্গল

প্রকাশিত

নিজস্ব প্রতিনিধি: আজকের গড় জঙ্গল ছিল অতীতে সেনপাহাড়ির একটি অংশ। ধর্মমঙ্গল কাব্যে আছে ইছাই ঘোষ এখানে দুর্গ নির্মাণ করেন। চিত্রসেনরাই মারাঠা দস্যুদের আক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য এই দুর্গে আশ্রয় নেন। ইছাই ঘোষ সেনপাহাড়ি দুর্গে শ্যামারূপা মূর্তি স্থাপন করে পুজো শুরু করেন।

ইতিহাস আর প্রকৃতি মিশে রয়েছে গড় জঙ্গলে!

শাল, শিরিষ ও অর্জুনের জঙ্গলে গড় চণ্ডীধাম। মার্কণ্ডেয় পুরাণ অনুসারে রাজা সুরথ এই জঙ্গলে মেধস মুনির আশ্রমে বাংলার প্রথম দুর্গাপুজো করেন। সেনবংশের রাজা লক্ষণ সেন এই দেবীর পুজো দিতে আসতেন। এই দেবীর সামনে আগে নরবলি হত। দেবী কালী রূপেও পূজিত হন, আবার দুর্গা রূপেও।

garh jungle 06.11 1

রাজা লক্ষণ সেনের পঞ্চরত্নের এক রত্ন ছিলেন গীতগোবিন্দ রচয়িতা কবি জয়দেব। তাঁর প্রচেষ্টাতে এই বলি বন্ধ হয়ে যায়। শোনা যায় রাজা লক্ষণ সেন বেশ কিছু দিন এখানে লুকিয়ে ছিলেন। শ্যামরূপা নামে দেবীকে ডাকা হয়। মন্দিরের গর্ভগৃহে তিনি অধিষ্ঠিত। দর্শন করা যায়।

অজয় নদীর পাড়ে রয়েছে ইছাই ঘোষের দেউল। ধর্মমঙ্গল কাব্যের ইছাই ঘোষের সঙ্গে গৌড়ের লাউ সেনের গড়জঙ্গলে যুদ্ধ হয়েছিল। আগে এর নাম ছিল ঢেকুরগড়। এখানকার নিম্নবর্গের মানুষদের নিয়ে রাজা ইছাই ঘোষ এক সৈন্যদল করেছিলেন।

দূর্গাপুর থেকে ২৩ কিলোমিটার দূরে এই জঙ্গল। জঙ্গলের ভেতর গড় এখন ভগ্নস্তূপে পরিণত হয়েছে। লাল মোরামের রাস্তা ধরে উপভোগ করতে পারেন জঙ্গলের সৌন্দর্যময় দৃশ্য।

গড় জঙ্গলের পথনির্দেশ

কলকাতা থেকে ট্রেনে দুর্গাপুর। সেখান থেকে গাড়ি বুকিং করে চলে যেতে পারবেন গড় জঙ্গল।

সাম্প্রতিকতম

জার্মানি, সুইৎজারল্যান্ডে নেই, ভারতের সেরেল্যাকে অত্যধিক চিনি, তদন্তের নির্দেশ

এ নিয়ে একটি আন্তর্জাতিক রিপোর্ট সামনে আসার সঙ্গে  তৎপর হল কেন্দ্র। ইতিমধ্যে নেসলে কোম্পানির শিশুখাদ্য নিয়ে তদন্ত শুরু করছে  স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের অধীন খাদ্য সুরক্ষা নিয়ন্ত্রক (এফএসএসএআই)।

শহরে অত্যধিক গরমের অনুভূতির কারণ ‘আরবান হিট আইল্যান্ড’

শ্রয়ণ সেন তাপপ্রবাহের কবলে দক্ষিণবঙ্গ। এই অঞ্চলের ১৫টি জেলার মধ্যে দক্ষিণ ২৪ পরগণা এবং পূর্ব...

লোকসভা নির্বাচনের প্রথম দফায় রেকর্ড ভোট পড়ল ত্রিপুরায়, দ্বিতীয় স্থানে বাংলা

কমিশনের তথ্য অনুযায়ী সন্ধে সাতটা পর্যন্ত ভোট পড়েছে, ৭৯.৯০ প্রথম দফায় ৫৮১৪ বুথে ভোটগ্রহণ হয়েছে। ১০০ শতাংশ বুথে এদিন কেন্দ্রীয় বাহিনী ছিল।

ভোট না দিয়ে ফেরত যাবেন না! পরিযায়ী শ্রমিকদের ‘সতর্কবার্তা’ মমতার

মুর্শিদাবাদের জনসভায় তিনি বলেন, 'আমি সমস্ত পরিযায়ী শ্রমিকদের অনুরোধ করতে চাই যারা এখানে ঈদ উদযাপন করতে এসেছেন, দয়া করে ভোট না দিয়ে ফিরে যাবেন না।

আরও পড়ুন

সস্তায় ফ্লাইট টিকিট ও হোটেল পাওয়া এখন খুবই সহজ, গুগলের এই কৌশলটি জানেন তো?

আপনি কি এক শহর থেকে অন্য শহরে বা ভারতের বাইরে ভ্রমণ করেন? তা হলে...

সিকিম স্বাভাবিক হচ্ছে, উত্তরবঙ্গ পুরো স্বাভাবিক, বিভ্রান্তিমূলক খবরে প্রভাবিত হয়ে পুজোর ভ্রমণ বাতিল করবেন না

খবর অনলাইন ডেস্ক: সিকিম ক্রমশ স্বাভাবিক হচ্ছে। ১০ নম্বর জাতীয় সড়কে যানচলাচল স্বাভাবিক হওয়ার...

দিল্লি থেকে দু’ দিনের ছুটিতে: চলুন জয়পুর

খবরঅনলাইন ডেস্ক: অনেকেই দিল্লি বেড়াতে গিয়ে দুটো-তিনটে দিন আশপাশে কোথাও বেড়িয়ে আসার কথা ভাবেন।...