Homeকথাশিল্পপ্রিয় পথ…

প্রিয় পথ…

প্রকাশিত

bhargavi basu 15.01 1

ভার্গবী

প্রিয় পথ,

তোমায় দেখি আর ভাবি কোথা থেকে এলে তুমি? কোন বাঁধনে বাঁধো তুমি আর যাবেই বা কোন ঠিকানায়? তোমায় জিজ্ঞেস করে উত্তর পেয়েছিলাম, শেষের কবিতার দুটি পংক্তি, “পথ বেঁধে দিল বন্ধনহীন গ্রন্থি / আমরা দুজন চলতি হাওয়ার পন্থী”। বুঝিয়েছিলে আমায়, তোমার কোনো গন্তব্য নেই। কোথাও পৌঁছোনোর তাড়া নেই তোমার। শুধু একটা মন্ত্র আছে ‘চরৈবেতি’। 

কাগজের পাখা ঘুরবে বলে কিশোর মন অকারণ পুলকে ধানখেতের আলপথ ধরে ছুটতে থাকে। আলপথের গায়ে কিশোরবেলার কচি পা সবুজ মাড়ায়। আর সেই ফাঁকে হাত উঁচু করে ধরে রাখা রঙিন কাগজের পাখার সাথে আলপথের সবুজ ঘাসের একটা বন্ধুতা তৈরি হয়ে যায়, ঝলমলে সূর্যের আলো মেখে।

সেই গ্রীষ্ম দুপুর। কাঁখে তার পোড়া মাটির কলসি। চলকে পড়া জল। তৃষ্ণার্ত তোমার ধুলো সিক্ত করে কোনো যৌবন-ভীরু পল্লিবালা, তোমারই মেঠো পথে। তুমি শুষে নাও বারিধারার ভালোবাসাটুকু। আচ্ছা, সত্যি করে বলো তো সে চকিতে আঁচল গোছাবে বলেই কি তুমি আছো? সেই থেকেই বুঝি তোমার সাথে আলাপ পোড়ামাটির কলসির?

তুমি এ সব প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়েও দাওনি। কি এক রহস্যের হাসি এঁটে তুমি দূরে মিলিয়ে গেলে দিগবলয়ের গায়ে। ভেবেছিলাম সেই তোমার শেষ। তুমি বলেছিলে, শেষ বলে কিছু নেই। কিছু হয় না। বিস্তর প্রতিবাদ করেছি আমি। বলেছি জীবনের পথ শেষ হয় মৃত্যুর দরজায়। তুমি বলেছিলে মৃত্যু হয় শরীরের, দেহের। কাজের মৃত্যু নেই। আর নিজেকে উপাধি দিয়েছিলে কর্মবীর বলে।

জিজ্ঞাসা অনন্ত আমার, বললাম…. তো, কী এত কাজ শুনি! বিস্তর কাজের ফিরিস্তি দিয়েছিলে সে দিন। বলেছিলে, যার ঘর নেই তাকে তোমায় ধারণ করে রাখতে হয় বুকের মধ্যে। যার ঘর আছে তাকে যত্ন করে ঘরে পৌঁছে দিতে হয় তোমাকে।

আচ্ছা, তার সাথে কি তুমিও সে ঘরে আটকা পড়ো না? বলেছিলে, তোমার কাজ পৌঁছে দেওয়ার, ঘাঁটি বাঁধার নয়। কখনো তুমি নিয়ে গিয়ে ফেলো ব্যস্ত বন্দরে। জলপথের নরম নীল ডিঙিয়ে সবুজ পান্নার মতো জেগে থাকা কোনো দারুচিনি দ্বীপের কাছে পৌঁছে যাও। কিশোরী মেয়ের ঝিনুক জমানো দেখতে দেখতে এগিয়ে যাও নতুন কোনো দিশায়। কখন কোন ফাঁকে নিয়ে গিয়ে ফেলো সেই জঙ্গলে যেখানে রৌদ্র আর ছায়ার খুনসুটিতে বেলা কেটে যায়। কী একটা অচেনা পাখির ডাক দূরে মিলিয়ে যায়। সন্ধ্যা নামে ধীরে, জোনাক জ্বলে ওঠে ইতি-উতি। পথ, তোমায় ঠাহর করতে পারি না। আর যা অগোচরে থাকে, আড়ালে থাকে, অন্ধকারে আবছা হয়ে থাকে তার প্রতি আকর্ষণ অনিবার্য। তাই তাকে খুঁজতে সে আঁধারে পাড়ি দাও এক দিশা থেকে অন্য দিশায়।

চলা ছাড়া বোধকরি আর কোনো নিয়ম মানায় না তোমায়। মানোও না থামার নিয়মকে তুমি কোনো দিন। পাহাড়ের পাকদণ্ডিকে পেঁচিয়ে পেঁচিয়ে দুর্গমে নিয়ে গিয়ে ফেল নিজেই নিজেকে। কতিপয় সাথি জোটে সে দুর্গমের। হারায়ও বিস্তর। বলেছিলাম কেন বাপু, হারায় যদি সাথি, ওই দুর্গমের টানে কেন নিয়ে যাও? বলেছিলে, তোমার চলা আছে, দেখার চোখ নেই। তোমার বলার আছে কিন্তু বলার ভাষা নেই। তাই সাথি জোটাও। বলেছিলাম, হারায় যে সাথি সে দুর্গমে চলার নেশায়, তোমার ভয় করে না। বলেছিলে, সাথি হারায়, সাথে থাকা হারায় না।

পাহাড়ি নদীর সাথে নুপুরের আওয়াজ তুলে নেমে আসো সেই মোহনার কাছে। আবার যাও ধু-ধু মরু প্রান্তর পেরিয়ে, টিলা-পাহাড় ছাড়িয়ে দুর্গম শীতল পাহাড়ের চূড়ায়। চূড়ান্ত চলাচল তোমায় ক্লান্ত করেনি কখনও। তুমি ক্লান্তিহীন, নিশিদিন। তিষ্টও না কোথাও দু’দণ্ড। কী পাও যে চলতে চলতে, বুঝতে পারি না। উত্তর দিয়েছিলে, তিষ্টলে তেষ্টা বাড়ে বাঁধনের। সে বড়ো বালাই। তার চেয়ে কী পাই বলি তোমায় – যা পাই তা রাজার ঐশ্বর্য্যের মতো ক্লান্তিকর  নয়। তা রোজের মধ্যবিত্তের বাজার থেকে বাড়ি ফেরার মতো অভ্যাস নয়। আমি যা পাই তার নাম বৈচিত্র্য।

পথ, তুমি ঠিকানায় পৌঁছোবে না কখনও কোনো দিনও, সে বেশ বুঝতে পারি আমি। তোমার সাথে আমার কিছু দেওয়া-নেওয়া আছে। কিছু নিত্যকার, কিছু অনিত্যের। ভালো থেকো পথ। রোদ ছুঁয়ে থাক তোমায় আলো করে। বৃষ্টি ভিজিয়ে দিক তোমার ভিজে নেওয়ার ইচ্ছাকে। জোৎস্না জিড়িয়ে নিক তোমার বুকে। এ সব নিয়ে ভালো থেকো তুমি।

ভালোবাসা রইল।

ইতি…

সাম্প্রতিকতম

গরম নিয়ে আতঙ্ক ছড়াবেন না, আতঙ্কিত হবেন না

শ্রয়ণ সেন আতঙ্ক! আতঙ্ক! আতঙ্ক! সমাজমাধ্যমের পাতা ওলটালেই গরম নিয়ে চূড়ান্ত আতঙ্কজনক খবর! মানুষ গরম অনুভব...

প্রথম দফায়  গডকরী, রিজিজু-সহ মোদী সরকারের ৮ মন্ত্রী, বিজেপির ২ প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লড়ছেন ভোটে

লোকসভার পাশাপাশি   অরুণাচল প্রদেশের ৬০ এবং সিকিমের ৩২টি বিধানসভা আসনেও ভোট হবে শুক্রবার।

লোকসভা নির্বাচনের প্রথম দফায় আজ ১০২টি কেন্দ্রে ভোট

খবর অনলাইন ডেস্ক: আজ শুক্রবার শুরু হচ্ছে ভারতের অষ্টাদশ লোকসভা নির্বাচন। দেশ জুড়ে প্রায়...

আগামী কয়েক দিন গরম আরও বাড়তে পারে, কিন্তু গরম পড়াও দরকার

শ্রয়ণ সেন যতই হাহাকার করুন না কেন, গরমকালে গরমই পড়া দরকার। এ বছর মার্চ মাস...

আরও পড়ুন

রবীন্দ্রনাথের ‘রাখীসঙ্গীত’ এবং তার ঐতিহাসিক প্রেক্ষিত

পঙ্কজ চট্টোপাধ্যায় রবীন্দ্রনাথ নিজেই তাঁর গানের সংকলন গ্রন্থ গীতবিতানের গানগুলি সাজিয়েছিলেন। সেই গীতবিতানের প্রথম খণ্ডে...

সুড়ঙ্গ থেকে শ্রমিকদের উদ্ধার করে মুন্না, ফিরোজরা মনে করিয়ে দিলেন জন হেনরিকে – ‘শ্রমিকের জয়গান কান পেতে শোন ওই…’

পঙ্কজ চট্টোপাধ্যায় ‘মানুষ মানুষের জন্যে, জীবন জীবনের জন্যে, একটু সহানুভূতি কি মানুষ পেতে পারে না,...

মুক্তির মন্দির সোপানতলে: ভারতের স্বাধীনতাযুদ্ধের এক অল্প-জানা কাহিনি

পঙ্কজ চট্টোপাধ্যায় ঢাকায় অত্যাচারী হাডসনকে নিকেশ করে ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফোর্থ ইয়ারের ফার্স্টবয় অনেক চড়াই-উতরাই...