Homeখেলাধুলোক্রিকেটবিশ্বকাপ ক্রিকেট ২০২৩: শামির ৭, কোহলি-শ্রেয়সের শতরান, ১২ বছর পর ফাইনালে ভারত

বিশ্বকাপ ক্রিকেট ২০২৩: শামির ৭, কোহলি-শ্রেয়সের শতরান, ১২ বছর পর ফাইনালে ভারত

প্রকাশিত

ভারত: ৩৯৭-৪ (বিরাট কোহলি ১১৭, শ্রেয়স আইয়ার ১০৫, শুভমন গিল ৮০ নট আউট, টিম সাউদি ৩-১০০)

নিউজিল্যান্ড: ৩২৭ (৪৮.৫ ওভার) (ড্যারিল মিচেল ১৩৪, কেন উইলিয়ামসন ৬৯, গ্লেন ফিলিপস ৪১, মোহম্মদ শামি ৭-৫৭)

মুম্বই: একটা পরিসংখ্যান দিয়ে শুরু করা যাক এই প্রতিবেদন। এ বারের বিশ্বকাপে ভারতের টানা ১০টি ম্যাচে জয় এল। ভারতের জয়ের গড় ব্যবধান ১৭৫ রান, ৬.৪ উইকেট এবং ৬৪.৪ বল বাকি থাকতেই। অর্থাৎ কোনো ম্যাচে ভারতের জয় নিয়ে চিন্তা থাকারই কথা নয়। কিন্তু বুধবার সেমিফাইনালের ম্যাচে ভারতের সমর্থকদের মনে সেই চিন্তা ধরিয়ে দিয়েছিল নিউজিল্যান্ড, অন্তত পক্ষে দু’ বার।

নিউজিল্যান্ড তখন ২ উইকেটে ৩৯ রান। আউট হয়ে গিয়েছেন দুই ওপেনার ডেভন কনওয়ে এবং রাচিন রবীন্দ্র। ভারতের সমর্থকরা দেশের জয় নিয়ে অনেকটাই নিশ্চিত। ক্রিজে অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের সঙ্গী হলেন ড্যারিল মিচেল। একটু একটু করে দলের স্কোরে রান যোগ হতে লাগল। এবং রান ওঠার গতিও বেশ বাড়তে লাগল। রান পেরিয়ে গেল ৫০, ১০০, ১৫০, ২০০। বেশ চিন্তান্বিত ভারতের সমর্থকরা। তা হলে কি ‘ল’ অভ অ্যাভারেজ’টা এই নক আউটের খেলাতে এসেই খেটে যাবে? না, তা হয়নি।

আবার একই চিন্তা গ্রাস করেছিল ভারতের সমর্থকদের যখন পঞ্চম উইকেটের জুটিতে ব্যাট করছিলেন গ্লেন ফিলিপস এবং ড্যারিল মিচেল। না, এ বারেও কিউয়িরা পারল না। তারা ১.১ ওভার বাকি থাকতেই ৩২৭ রানে অল আউট হয়ে গেল। ভারত ৭০ রানে জিতে ১২ বছর পর বিশ্বকাপের ফাইনালে গেল। বল হাতে ভেলকি দেখালেন মোহম্মদ শামি। ৫৭ রানে ৭ উইকেট দখল করে হলেন ‘প্লেয়ার অভ দ্য ম্যাচ’।

কিউয়ি বোলারদের নিয়ে ছেলেখেলা ভারতের ব্যাটারদের          

বুধবার মুম্বইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে আয়োজিত সেমিফাইনাল ম্যাচে টসে জিতে ব্যাট নেয় ভারত। গোড়া থেকেই ভারতের চেষ্টা ছিল যতটা বেশি রান করে নিউজিল্যান্ডকে কঠিন লড়াইয়ের মুখে ফেলা যায়। সেই লক্ষ্য নিয়েই ব্যাট শুরু করেন দুই ওপেনার দলের অধিনায়ক রোহিত শর্মা এবং শুভমন গিল। প্রতিপক্ষের বোলারদের কোনো রকম রেয়াত না করে তাঁরা দাপিয়ে খেলতে থাকেন। প্রথম উইকেটের জুটিতে তাঁরা দু’জনে করেন ৭১ রান। এর মধ্যে ৪৭টা রান এসেছিল রোহিতের ব্যাট থেকে। মাত্র ৩ রানের জন্য তিনি অর্ধশত রান মিস করেন। টিম সাউদির বলে উইলিয়ামসনকে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান রোহিত।

শুভমনের সঙ্গী হন বিরাট কোহলি। কোহলির ব্যাট দেখে শুরু থেকেই মনে হচ্ছিল আজ তিনি দৃঢ়প্রতিজ্ঞ সচিনের রেকর্ড ভেঙে ফেলার ব্যাপারে। আজই তিনি একদিনের ম্যাচে সর্বাধিক সেঞ্চুরি করার রেকর্ডটি করে ফেলবেন। কিউয়ি বোলাররা এতটুকু বেগ দিতে পারেননি শুভমন আর কোহলিকে। শুভমন আর কোহলি কার্যত তাঁদের নিয়ে ছেলেখেলা করলেন। ইতিমধ্যে রাচিন রবীন্দ্রের প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলে ১ রান নিয়ে শুভমন তাঁর অর্ধশত রান পূর্ণ করেন। কিছুক্ষণ পরে পায়ে টান ধরায় শুভমন অবসৃত হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান। কোহলির সঙ্গী হন শ্রেয়স আইয়ার।

দুরন্ত গতিতে রান উঠতে থাকে ভারতের। কোহলি তাঁর ৫০ রান পূর্ণ করেন ৫৯ বলে। তাঁর শতরানের আশায় উন্মুখ হয়েছিলেন ভারতের সমর্থকরা। দলের রান তখন ২৭ ওভারে ১ উইকেটে ১৯৪। এ ভাবে চলতে থাকলে ভারত ৪০০ রানের গণ্ডি ছুঁয়ে ফেলতে পারেন বলে সমর্থকদের মনে ক্রমশই আশা ভর করতে থাকে।

বিরাটের ক্রিকেট কেরিয়ারে নানা মাইলফলক

ইতিমধ্যে বিরাটের ক্রিকেট কেরিয়ারে এ দিন নানা মাইলফলক চলে এল। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি অর্ধশত রানকারী ব্যাটারের তালিকায় কোহলি চলে এলেন ২ নম্বরে। সবচেয়ে বেশি ৫০ রান করেছেন সচিন তেন্ডুলকর, ২৬৪টি। এর পরেই স্থান রিকি পন্টিং এবং বিরাট কোহলির – ২১৭টি করে।

হাত খুলে খেলতে থাকেন নতুন ব্যাটার শ্রেয়স আইয়ার। মাঠে চার-ছয়ের বন্যা বয়ে যায়। শতরানের মুখে এসে বিরাট কোহলি একটু ধীরেসুস্থে খেলতে থাকেন। কারণ শতরান করতে পারলে এ তো শুধু একটা শতরানই হবে না, হবে একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচে সবচেয়ে বেশি সেঞ্চুরি করা ব্যাটার। এই ক্ষেত্রে আগের ম্যাচেই সচিনের রেকর্ডের ছুঁয়েছিলেন কোহলি। আজ সেই রেকর্ড ভেঙে দেওয়ার হাতছানি।

ইতিমধ্যে আরও একটি রেকর্ড করে ফেললেন কোহলি। কোনো বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি রান করার রেকর্ড। এ ক্ষেত্রেও তিনি সচিনের রেকর্ড ভাঙলেন। ২০০৩ বিশ্বকাপে সচিন করেছিলেন ৬৭৩ রান। আর এ বার ইতিমধ্যেই কোহলির রান দাঁড়িয়েছে ৬৭৪। এ দিকে ৫০ রান পূর্ণ করলেন শ্রেয়স। ৩৭তম ওভারের চতুর্থ বলে মিচেল স্যান্টনারের বলে ১ রান নিয়ে ৫০ করলেন। বিশ্বকাপে এটা হল আইয়ারের টানা চারটি অর্ধশত রান। ভারতের রান তখন ৩৬.৪ ওভারে ১ উইকেটে ২৬৮।

শেষ পর্যন্ত এল সেই মাহেন্দ্রক্ষণ, ম্যাচের ৪৩তম ওভারে। লকি ফার্গুসনের ওভারে সচিনের রেকর্ড ভাঙলেন কোহলি। একদিনের ম্যাচে সর্বাধিক সেঞ্চুরি করার রেকর্ডটি গড়লেন। ৫০তম সেঞ্চুরিটি করলেন তিনি।

ভারতের রান দাঁড়াল ৪২ ওভারে ১ উইকেটে ৩০৩ রান। এর পর আরও দ্রুত গতিতে রান উঠতে থাকে। শ্রেয়সও তাঁর সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন। ৭০ বলে ১০৫ রান করে তিনি ট্রেন্ট বোল্টের বলে ড্যারেল মিচেলকে ক্যাচ দিয়ে আউট হন। তার আগেই টিম সাউদি তুলে নিয়েছেন কোহলিকে। ১১৩ বলে ১১৭ করে টিম সাউদির বলে কনওয়ে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান কোহলি। ইনিংসের শেষ দিকে শুভমন আবার ব্যাট হাতে নামেন। শেষ পর্যন্ত ভারত নির্ধারিত ৫০ ওভারে করে ৩৯৭ রান। শুভমন ৮০ রানে (৬৬ বলে) এবং কে এল রাহুল ৩৯ রানে (২০ বলে) নট আউট থাকেন।

লড়াই চালালেন উইলিয়ামসন, মিচেল এবং ফিলিপস  

জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ৩৯৮ রানের লক্ষ্যমাত্রা তাড়া করতে গিয়ে ৩৯ রানের মধ্যে ২টি উইকেট হারায় নিউজিল্যান্ড। ডেভন কনওয়ে (১৫ বলে ১৩ রান) এবং রাচিন রবীন্দ্র (২২ বলে ১৩ রান) মোহম্মদ শামির বলে উইকেটকিপার কে এল রাহুলকে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান। বোলিং থেকে শামি সরে যেতেই হাত খুলে খেলতে থাকেন কেন উইলিয়ামসন এবং ড্যারিল মিচেল। কিউয়িদের রান যত বাড়তে থাকে ভারতের সমর্থকদের কপালে ততই ভাঁজ পড়তে থাকে। উইলিয়ামসন এবং  মিচেল ক্রমশই দলের ভিত শক্ত করতে থাকেন।    

ইতিমধ্যে শতরানে পৌঁছে গেলেন মিচেল। শামির পঞ্চম ওভারের তথা দলের ৩৩তম ওভারের প্রথম বলে ১ রান নিয়ে শতরান পূর্ণ করলেন মিচেল। দলের রান পৌঁছে গেল ২২০ রানে। ২ উইকেটে ২২০। বেশ শক্ত ভিতের উপর দাঁড়িয়ে কিউয়িরা। চিন্তা বাড়ছে ভারতের সমর্থকদের মনে। সেই সময় আবার শামির আঘাত। এই ওভারেই দু’জন কিউয়ি ব্যাটারকে ফিরিয়ে দিলেন মোহম্মদ শামি। প্রথমে উইলিয়ামসনকে, তার পরেই নতুন ব্যাটার টম ল্যাথামকে। নিউজিল্যান্ডের রান দাঁড়াল ৪ উইকেটে ২২০। এ বার ড্যারিল মিচেলের সঙ্গে জুটি বাঁধলেন গ্লেন ফিলিপস। আবার এগোতে থাকল কিউয়িদের রথ। আবার চিন্তা ভারতের সমর্থকদের মনে। তা হলে কি জয় হাতছাড়া হয়ে যাবে। এ বার কাজের কাজ করলেন জসপ্রীত বুমরাহ। ফিরিয়ে দিলেন ফিলিপসকে। ৩৩ বলে ৪১ রান করে জাদেজাকে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরে গেলেন ফিলিপস। দলের রান ৫ উইকেটে ২৮৫।

এর পর শুরু হল নিয়মিত উইকেট পতন। কুলদীপ এবং সিরাজ ১টি করে উইকেট তুলে নেওয়ার পর প্রায় সংহারমূর্তি ধারণ করে বাকি ৩টি উইকেট দখল করলেন মোহম্মদ শামি। তিনি তুলে নিলেন ড্যারিল মিচেল, টিম সাউদি এবং লকি ফার্গুসনকে। ৫৭ রানে ৭ উইকেট দখল করে বিশ্বকাপে এক অনন্য রেকর্ড সৃষ্টি করলেন মোহম্মদ শামি। আর কোনো ভারতীয় বোলারের বিশ্বকাপে এত ভালো পারফরম্যান্স নেই। শেষ পর্যন্ত ভারত জিতল ৭০ রানে।

বৃহস্পতিবার এ বারের বিশ্বকাপের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে মুখোমুখি হচ্ছে অস্ট্রেলিয়া এবং দক্ষিণ আফ্রিকা। বেলা ২টো থেকে খেলা শুরু হবে কলকাতার ইডেন গার্ডেন্স-এ।  

আরও পড়ুন

বিশ্বকাপ ক্রিকেট ২০২৩: একদিনের ম্যাচে সর্বাধিক সেঞ্চুরি, সচিনকে টপকে বিশ্বরেকর্ড বিরাট কোহলির

“না, রাহুল-সচিনের নাম থেকে রাচিনের নাম নয়”, তা হলে কী ভাবে এল ওই নাম

সেমিফাইনালে টিম ইন্ডিয়ার ‘তুরুপের তাস’, নিউজিল্যান্ড শিবিরে এই ভারতীয় বোলারকে নিয়ে আশঙ্কা

সাম্প্রতিকতম

সাজছে ঘূর্ণিঝড় ‘রেমাল’, সাগরদ্বীপ থেকে ৩৮০ কিমি দূরে, অভিঘাত সহ্য করতে হবে সুন্দরবনকে   

শ্রয়ণ সেন উপকূল থেকে ক্রমশ দূরত্ব কমছে ঘূর্ণিঝড় ‘রেমাল’-এর। শনিবার দুপুর ১২টা নাগাদ এটি অতি...

চলছে ষষ্ঠ দফার ভোটগ্রহণ পর্ব, নজর কোন কোন প্রার্থীর দিকে

খবর অনলাইন ডেস্ক: শনিবার লোকসভা নির্বাচনের ষষ্ঠ দফার ভোটগ্রহণ পর্ব চলছে। ৬টি রাজ্য ও...

‘৪০০-র অঙ্ক ছাড়ুন…’, ফলাফলের আগে যোগেন্দ্র যাদবের ভবিষ্যদ্বাণী, চাপ বাড়বে বিজেপির!

নয়াদিল্লি: শনিবার চলছে ষষ্ঠ দফার ভোটগ্রহণ। বাকি এখনও এক দফা। তার আগেই বড়সড় ভবিষ্যদ্বাণী...

আইপিএল ২০২৪: রাজস্থান রয়্যালস্‌কে ৩৬ রানে হারিয়ে ফাইনালে কলকাতার মুখোমুখি হায়দরাবাদ

সানরাইজার্স হায়দরাবাদ: ১৭৫-৯ (হাইনরিখ ক্লাসেন ৫০, রাহুল ত্রিপাঠী ৩৭, অবেশ খান ৩-২৭, ট্রেন্ট বোল্ট...

আরও পড়ুন

আইপিএল ২০২৪: রাজস্থান রয়্যালস্‌কে ৩৬ রানে হারিয়ে ফাইনালে কলকাতার মুখোমুখি হায়দরাবাদ

সানরাইজার্স হায়দরাবাদ: ১৭৫-৯ (হাইনরিখ ক্লাসেন ৫০, রাহুল ত্রিপাঠী ৩৭, অবেশ খান ৩-২৭, ট্রেন্ট বোল্ট...

আইপিএল ২০২৪: বেঙ্গালুরুকে হারিয়ে হায়দরাবাদের মুখোমুখি রাজস্থান রয়্যালস্‌

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু: ১৭২-৮ (রজত পতিদার ৩৪, বিরাট কোহলি ৩৩, অবেশ খান ৩-৪৪, রবিচন্দ্রন...

আইপিএল ২০২৪: ফাইনালে কেকেআর, এখনও একটা সুযোগ থাকল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ-এর

সানরাইজার্স হায়দরাবাদ: ১৫৯ (১৯.৩ ওভারে) (রাহুল ত্রিপাঠী ৫৫, হাইনরিখ ক্লাসেন ৩২, মিশেল স্টার্ক ৩-৩৪,...